Currently set to Index
Currently set to Follow
Books

স্মৃতিগন্ধা Pdf Download by সাদাত হোসাইন

বই : স্মৃতিগন্ধা Pdf Download
লেখক : সাদাত হোসাইন
প্রকাশনী : অন্যধারা
মূল্য: ৪৫০ টাকা
পার্সোনাল রেটিং – ৪.৫/৫

smriti gonda pdf free download by sadat hossain and Review

রিভিউটা আমার জীবনের সবচে দীর্ঘ রিভিউ হতে যাচ্ছে। যাদের ধৈর্য আছে তাদের জন্য।

খুবই অসাধারণ একটা বই। খুব কেঁদেছি বইটি পড়ে। অনেক ভালোবাসা আর মুগ্ধতা বইটির প্রতি। বইয়ের প্রচ্ছদটা অসাধারণ রকমের সুন্দর 😍

এই উপাখ্যান ভিন্নধর্মী দু’জন প্রেমিক যুগলের সংগ্রাম,ত্যাগ ও তীব্র ভালোবাসার আসক্তির উপাখ্যান, অসহায় বাবার ভগ্ন হ্রদয়ের আত্নচিৎকারের উপাখ্যান, মুক্তিযোদ্ধা নামক মুখোশধারী এক রাজাকারের এক হিন্দু পরিবারের প্রতি অসহনীয়, নিমর্ম অত্যাচারের উপাখ্যান, মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তী ইতিহাসের উপাখ্যান।

ভালোবাসা কোনো জাতি-ধর্ম-বর্ণ মানে না। কিছু কিছু জীবনের গল্প নাটক সিনেমাকেও হার মানায়। ভালোবাসাও এরকম বিশুদ্ধ হতে পারে, আচ্ছা আজকাল কি আমাদের সমাজে এমন বিশুদ্ধ ভালোবাসার দৃষ্টান্ত আছে। ভালোবাসা তো এমনি হওয়া উচিত স্বর্গীয়, দ্বিধাহীন, স্বার্থহীন, অন্ধবিশ্বাস।
ভুবনডাঙ্গা গ্রামের অপরূপ সৌন্দর্য, পারু-চারু দু’বনের খুনসুটি-দুষ্টুমি, পারু-ফরিদের স্বর্গীয় ভালোবাসা, বাবা মহিতোষের মেয়ে হারানোর আত্নচিৎকার, জাহাঙ্গীর ভূঁইয়ার অসহায় হিন্দু পরিবারের প্রতি অত্যাচার, আশরাফ খাঁ-র মহত্ত্ব, দিলারা ভাবির দুষ্টুমি, মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তী ইতিহাস খুব মার্জিতভাবে ফুটে ওঠেছে ‘স্মৃতিগন্ধা’ উপন্যাসে।

‘স্মৃতিগন্ধার’ সাথে আমার এক অদ্ভুত সম্পর্ক রয়েছে। ফেসবুকের একটা প্যারাসাইকোলোলজি গ্রুপে গত ১৮ মার্চ একটা “Spiritual Match Making” game হয়। সেই game উদ্দেশ্য ছিল নিজের চাওয়া, রুচিবোধের সাথে মিলে যায় এমন কাউকে জীবনসঙ্গী হিসেবে বাছাই করা। প্যারাসাইকোলজি গ্রুপে যখন গেইম শুরু হয় তখন গ্রুপের এডমিন একটি পোস্টের মাধ্যমে game এর নিয়মগুলো বলে দেয়। নিয়মটা এমন যে সবাই সবার নিজের সমন্ধে ৫ লাইন বলবে এবং কেমন জীবন সঙ্গী চায় তা উল্লেখ করে আরো পাঁচ লাইন লিখে কমেন্ট করবে। আমি নিয়ম অনুযায়ী পোস্টে কমেন্ট করলাম যে আমি বইপোকা, সলো ট্রাভেলার, হ্যাকার, কল্পনাবিলাসী এবং উচ্চশিক্ষায় আগ্রহী এবং নিচে আরো পাঁচ লাইনে বলে দিলাম আমি যেমন ঠিক তেমন বইপোকা, কল্পনাবিলাসী, ভ্রমণপ্রিয় একজন কে জীবনসঙ্গী হিসেবে চায়। কিছুক্ষণ অপেক্ষা করার পর ও দেখলাম আমার কমেন্টের কেউ রিপ্লে দেয় নাই। পরক্ষণেই ফোনের নোটিফিকেশন চেক করে দেখলাম আমার এক ফেসবুক ফ্রেন্ড আমাকে ওই “Spiritual Match Making” game এর পোস্টের এক মেয়ের কমেন্টে আমাকে ম্যানশন করছে। তারপর মেয়ের কমেন্ট চোখে পড়ল এবং ওই মেয়ের পছন্দ-অপছন্দের সাথে আমার পছন্দ-অপছন্দ মিলে গেল তাই আমি আর দেরি না করে গেইমের রুলস অনুযায়ী তাকে এই বলে ইনবক্স করি, “from Parapsychology group, may I proceed”. সাথে সাথে ওই মেয়ের রিপ্লে আসলো “Yeah!, of course. তার আইডির নাম “So… Mo..”. তারপর কথা বলতে বলতে আমাদের প্রেম হয়ে গেল দু’দিনেই।

আমি বইমেলায় প্রতিদিনই যাওয়া হয় এবং প্রথম দু’দিনেই ৩৩ টা বই কিনে আনি। তারপর ২১ মার্চ বিকালে বইমেলায় যাওয়ার আগমূহুর্তে আমার প্রিয়সী কে মেসেজ দেই যে আমি এখন বইমেলায় যাচ্ছি রাতে কথা হবে, আজকে আমার বইয়ের লিস্ট অনেক দীর্ঘ তাই তাড়াতাড়ি যেতে হবে বইমেলায়। তারপর ও বলে ওর জন্য যাতে সাদাত হোসাইনের ‘স্মৃতিগন্ধা’ বইটা নিয়ে এসে তার বাসার ঠিকানায় বই পাঠিয়ে দেই। বই কিনে নিয়ে এসে প্রিয়সীকে মেসেজ দিয়ে বলি বই নিয়ে আসছি, আমি বইটা পড়ে শেষ করে তোমার কাছে পাঠিয়ে দিব।

আমি একদিনেই বইটি পড়ে শেষ করে ফেলি এবং ওর কাছে কুরিয়ারে পাঠিয়ে দেই। বই টি পড়ার সময় পারু আর ফরিদের জন্য অনেক কান্না করছি। আমি জীবনে আরেকটি বই পড়ে কান্না করেছিলাম এটা আমারা জীবনের দ্বিতীয় বই যা আমার মনে প্রচন্ড ধাক্কা দেয় আমার চোখের ফোয়ারা বেয়ে শ্রাবণ মেঘের মতো চোখের পানি ঝরতে থাকতে।

স্মৃতিগন্ধা বইটা প্রিয়সীর কাছে পৌচ্ছে গতকাল, ও প্রায় এক-তৃতীয়াংশ পড়ে শেষ করে ফেলছে। আমি বইটি পড়ার সময় বইয়ের মাঝখানে একটা স্টিকি নোটে লিখে দিয়েছিলাম ‘তুই কি আমার পারু হবি’। প্রিয়সী চিরকুটটা দেখে অবাক হয়ে আমাকে ফোন দিয়ে বলে তুমি এসব আইডিয়া কোথা থেকে পাও। হাহাহা এসব আইডিয়া তো মন থেকে আসে তাই না !

আমি জানি না আমার প্রিয়সী আমার সাথে অভিনয় করছে কিনা, তবে আমি যে অভিনয় করতে জানি না। আমার মধ্যে যে ফরিদের সত্যিকারের ভালোবাসা অন্তর্নিহিত, তবে ও কি পারুর মতো আমায় ভালোবাসতে পারবে ? সময়ই সব বলে দিবে। মানুষ স্মৃতি হয় না , স্মৃতি হয় সময়। হয়তো তোমার সাথে অতিবাহিত সময়টা স্মৃতি হয়ে থাকবে, হয়তো আমার কোনো গল্পে কোনো প্রতাকর চরিত্রের ভূমিকায় থাকবে।

“তুই কি আমার পারু হবি”

“জানি যাচ্ছি ফেলে সন্ধ্যা
সাথে তোমাকেও, স্মৃতিগন্ধা”

দ্বিতীয় খন্ডে সমাপ্ত। গল্পটা ভয়ঙ্কর সুন্দর। দ্বিতীয় খন্ডের জন্য অপেক্ষায় থাকবো।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker