Currently set to Index
Currently set to Follow
Books

পথের পাঁচালী Pdf Download & রিভিউ

বইয়ের নাম:পথের পাঁচালী (Pather Panchali ) pdf Download by Bibhutibhushan Bandyopadhyay
লেখক:বিভূতিভূষণ বন্দ্যোপাধ্যায়
ধরণ: আত্মজৈবনিক উপন্যাস
পারসোনাল রেটিং:৯/১০
“নিশ্চিন্দিপুর আমাদের বড় ভাল গাঁ, এমন নদী, এমন মাঠ কোথাও নেই”;এমন এক ছবির মতন গাঁয়ে অপু ও দুর্গার শৈশব যেন গ্রাম-বাংলার শাশ্বত চিত্র।‘বল্লালী বালাই’, ‘আমি আঁটির ভেঁপু’ ও ‘অক্রুর সংবাদ’ এই তিন পরিচ্ছেদে বিভক্ত বইটিতে কখনো আমরা দেখেছি দুর্গা ও অপুর মা সর্বজয়ার মাতৃ-মূর্তি, কখনো বাবা হরিহরের সংগ্রাম আবার কখনো বা ইন্দির ঠাকরুণের অস্তিত্বের ইতিহাস।তবে সবকিছু ছাপিয়ে শৈশব-জীবনের মাধুর্য ও গ্রামীণ আবহই পাঠককে মোহাবিষ্ট করে রাখে বেশীরভাগ সময়ে।ইন্দির ঠাকরুণ যেন এক অন্যকালের প্রতিনিধি।“তার মৃত্যুর মধ্য দিয়ে সেকালের অবসান হইল”। দুর্গার চিত্র আঁকতে ফিরে যাওয়া যায় বইয়ের বর্ণনায়।“ছেলেমেয়ের সঙ্গে তাহার বড় একটা খেলা-ধুলা নাই।কোথায় কোন ঝোঁপে বৈচি পাকিল,কাদের বাগানে কোন গাছটায় আমের গুঁটি বাধিয়াছে,কোন বাঁশতলায় শেয়াকুল খাইতে মিষ্টি,এসব তার নখ দর্পণে।
”অপুর জন্ম,কৈশোর ও শৈশব নিশ্চিন্দপুরের প্রাচীন ভিটে,বাঁশ-বাগান,সোনামুখী আমের তলা,কুঠির মাঠ,কিংবা দূরের রেল-গাড়ির ঝিকঝিক শব্দে মুখরিত।খেয়ালী অপু দেখতে রাজপুত্তুরের মতন,গরীব ব্রাহ্মণের ঘরের প্রদীপ,মায়ের শান্ত ছেলে কিংবা দিদি দুর্গার আদরের খেলার সাথী।কল্পনা বিলাসী অপু কখনো রামায়ণ-মহাভারতের যোদ্ধা,কখনো বা ব্যস্ত উঠোন জুড়ে টেলিগ্রাফের তার সাজাতে।সেই অপুই আবার কাশীতে যেয়ে দেখতে পায় জীবনের অন্য রূপ।তখন তার মনে পড়ে দিদির কথা,গ্রামের কথা।“শোন অপু,আমায় একদিন রেলগাড়ি দেখাবি?”এই অপূর্ণ ইচ্ছা নিয়েই দুর্গা চলে যায়।অপুকেও এগিয়ে যেতে হয় ভবিষ্যতের দিকে।পড়ে থাকে শাঁখারী পুকুর,বাঁশবন,ইছামতি নদী,পোড়ো ভিটার মিষ্টি লেবু ফুলের গন্ধ। নতুন আশা নিয়ে কাশীতে যাওয়া সর্বজয়া ও হরিহর এর গুছিয়ে ওঠা হয় না আর।কথক হরিহরকে ইহজীবনের ইতি টানতে হয় কাশীতেই।অপু আর তার মায়ের জীবনে আসে প্রকৃত আশ্রয়হীনতার সময়।দারিদ্র্যতার মাঝে বেড়ে উঠলেও তার থাবার নিচে পড়তে হয়নি এই স্বপ্নচারী বালককে এর আগে।জীবনপটে আঁকা প্রতিটি চরিত্র যেন পাঠকের সামনে দিব্যি হেঁটে-চলে বেড়ায়,চোখের সামনে ভেসে ওঠে বুনো-ঝোপ কিংবা বিকেলের রোদ পড়া শ্যাওলা-পাঁচিলের দৃশ্য;এতটাই সুনিপুণ এই উপন্যাসের লেখনী।অপু-দুর্গা হয়ে উঠেছে দুরন্ত কৈশোরের প্রাণোচ্ছ্বল প্রতিনিধি।দুর্গা নিশ্চিন্দপুরের মায়ায় ডুবে গেলেও, অপুর পথের ঊষার উদয় হয়েছে জীবনের নতুন পথে।সে বিচিত্র পথের সন্ধান পেতে পাঠককে এই বইয়ের পাতাতে মুখ ডুবাতেই হবে।
পৃথিবী বইয়ের হোক,বই পাঠকের হোক।
ক্রেডিট:মারজানা আফরিন বাঁধন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker