OthersUpdate News

ফ্রিল্যান্সিং কার্ড – বাংলাদেশ সরকারের গোপন মুখোশ উন্মোচন

অনেকে ঠাট্টার চলে বলে থাকেন, পৃথিবী টা একটা রঙ্গমঞ্চ, আর বাংলাদেশ হচ্ছে তার সদর দপ্তর। সরকারি সব খাতে, সব জায়গায় দুই নাম্বারি জালিয়াতি। ঠিক এমনটাই ঘটেছে ফ্রিল্যান্সারদের জন্য কার্ড এর ক্ষেত্রেও।

এ পোস্টে সব দুনাম্বারি তুলে ধরা হল।

(১) ফ্রিল্যান্সিং কার্ডের লগোতে জালিয়াতি

কার্ড নিয়ে জালিয়াতি

(২) কার্ড বিতরণের সরকারি ওয়েবসাইট এর লগোয় জালিয়াতি

freelancer card logo piracy Bangladesh

Logo এডোব স্টোক এ সাইন আপ করলে প্রথমে ফ্রীতেই কয়েকটি আইটেম ডাউনলোড করা যায় সেখান থেকে নেওয়া হয়েসে সম্ভাবত।

(৩) ফ্রিল্যনার কার্ডটির অফিশিয়াল সাইট এর যে এপ প্লে স্টোরে ছাড়া হয়েছে তাতে ডেভেলপার একাউন্টে playense লেখা দেখা যায়।

প্রশ্ন: Playense এটা দ্বারা কি বোঝায়?
উত্তর: সম্ভবত এটা আগের কারও একাউন্ট করা ছিল তার মাধ্যমে পাবলিশ করেছে। এক্ষেত্রে ২৫ ডলার এ একটা ডেভেলোপার একাউন্ট করলে কি অনেক ক্ষতি হইতো??

স্কিল ছাড়া ঘুষ দিয়ে চাকরি করা যায় ফ্রিলান্সিং করা যায়না। ইজ্জত এর আর কিছু বাকি রইলো না!

(৪) ফ্রিল্যনার কার্ডটির অফিশিয়াল সাইটে GPL নাল থিম লাইসেন্স theme use করেছে।

যাই বলুন, কমছে কম ওয়ার্ডপ্রেস থিমটা কেনা যেত, সেটাও ক্র‍্যাক মনে হচ্ছে।

frelancer of Bangladesh

আর পেমেন্ট গেটওয়ে তো Amarpay মার্কেটিং এর জন্য এমনিতেই দিছে।ডোমেইন হোস্টিং এর কথা আর কি বলবো….gov.bd তো BTCL এর।

(৫) আর হোস্টিং AWS এর যেখানে ১ বছর ফ্রী ট্রায়াল।আর কিছু কমুনা ভাই🙃
কোন কিছু ভুল হলে মাফ করে দিয়েন…🙏🙏🙏

 পরিশেষে বলব, এখানে আসলে দোষ সরকারের না, দোষ যারা এগুলার টেন্ডার নিসে তাদের।

দেশের ফ্রিল্যান্সরা বাস্তবে সরকারের এই কার্ড চায় না। যদি না তাদের নিচের শর্ত পুরণে সরকার ব্যর্থ হয়।

যে শর্তগুলো মানলে ফ্রিল্যান্সারা বছরে ১৫০০ করে দিয়ে এ কার্ড নিতে রাজি

  1. পেপাল আনতে হবে।
  2. দ্রুতগতির ইন্টারনেট সুলভ মূল্যে সরবরাহ করতে হবে। এবং প্রতিটি গ্রাহকের জন্য Real I P নিশ্চিত করতে হবে।
  3. ২৪ ঘন্টা বিদ্যুত নিশ্চিত করতে হবে (বিশেষকরে গ্রাম-অঞ্জলে)

বেশি কিছু চায় না তারা, এই তিনটি শর্তপূরন করতে পারলে ফ্রিল্যান্সাররা বছরে ১৫০০টাকা দিয়ে এ ভার্চুয়াল কার্ড নিতে রাজী আছে বলে জানা যায়।

ফিল্যান্সার ভার্চুয়াল আইডি কার্ড পাবার জন্য রিকুয়ারমেন্ট

  • ১. বাংলাদেশের নাগরিক হতে হবে।
  • ২. গত ১২ মাসে নূন্যতম ১০০০$ আনিং করতে হবে এবং প্রমান দিতে হবে।
  • ৩. ১৫০০ টাকা আবেদন ফি। যার মেয়াদ ১ বছর। প্রতি বছর সমপরিমান ফি দিয়ে রিনিও করতে হবে।
  • ৪. আবেদন করতে হবে https://freelancers.gov.bd ওয়েব সাইটের মাধ্যমে।
  • https://www.bfds.com.bd/

ফ্রিল্যান্সার এই কার্ডের সুবিধা কি?

একমাত্র ছেলে বিয়ে করবার সময় বলতে পারবে যে, “ছেলে সরকারী ফ্রীল্যান্সার”। এর বাইরে কোন সুবিধা আছে? কারো জানা থাকলে জানাবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker